W3vina.COM Free Wordpress Themes Joomla Templates Best Wordpress Themes Premium Wordpress Themes Top Best Wordpress Themes 2012

মুরাদনগরে ব্যবসায়ী-পুলিশ সংঘর্ষ-গুলি, পুলিশসহ আহত ৩০

Filed under: মুরাদনগর |

কুমিল্লা মুরাদনগরে উপজেলার নব-গতি হায়দাবাদ বাজারের এক ব্যবসায়ীর দোকানে জালটাকা রেখে ফাসাঁনোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই সময় উত্তেজিত জনতা বাঙ্গরা থানার এএসআইসহ তিন পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে তাদেরকে উদ্ধারের সময় পুলিশ শতাধিক রাবার বুলেট, টিয়ারশেল ও লাঠি চার্জ করে। স্থানীয়রাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়ে। এ সময় নারীসহ চারজন গুলিবিদ্ধ হন। পুলিশসহ আহত হন প্রায় ৩০ জন।1

সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সাদা পোশাকে অভিযানের নামে ব্যবসায়ীকে জালটাকা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টার ওই ঘটনাটি ঘটে বলে স্থানীয়রা জানান।

হায়দরাবাদ বাজারের ব্যবসায়ীসহ এলাকার লোকজন জানায়, সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বাঙ্গরা থানার এএসআই মোসলেমসহ তিন পুলিশ সদস্য সাদা পোশাকে হায়দরাবাদের বাদামতলী বাজারে জালটাকা উদ্ধার অভিযানে যায়। এ সময় বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও জামিলা ভ্যারাইটিজ দোকানের মালিক মো. সোহেল মিয়ার দোকানে জাল টাকা রয়েছে বলে অভিযোগ করে তাকে আটকের চেষ্টা চালায়।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এর আগেও সোহেলের দোকানে জালটাকা ঢুকিয়ে সোহেলকে ফাসানের চেষ্টা করেছে একটি মহল। গত ২৩ জুলাই স্থানীয় লোকজন একলাখ ৩৯ হাজার টাকাসহ মোখলেছকে আটক করে বাঙ্গরা বাজার থানা পুলিশের নিকট সোপর্দ করলে পুলিশ বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দিয়ে মোখলেছকে কুমিল্লা কোর্টে চালান করে।

ব্যবসায়ী সোহেল মিয়া জানান, এএসআই মোসলেম তার সঙ্গে করে দুই লাখ টাকার জাল নোট নিয়ে এসে তার দোকানে ঢুকিয়ে দিয়ে তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করে। বিষয়টি নিয়ে বাকবিতণ্ডা শুরু হলে বাজারের ব্যবসায়ীসহ স্থানীয় লোকজন ওই পুলিশ সদস্যদেরকে ঘিরে ফেলে।

পরে ক্ষুব্ধ এলাকার লোকজন চার পুলিশ সদস্যকে দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। এ খবর পেয়ে বাঙ্গরা থানা ও মিরপুর পুলিশ ফাঁড়ি থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে শতাধিক রাবার বুলেট, টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও লাঠি চার্জ করে জনতাকে ছত্রভঙ্গ করার পর অবরুদ্ধ পুলিশ সদস্যদেরকে উদ্ধার করে।

এ সময় শিশু সৌরভ (৫), ছালমা (৪০), হাবিব (৪৫) ও ফরহাদ গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় বলেও জানান সোহেল।

এ বিষয়ে আন্দিকোট ইউপির চেয়ারম্যান মো. ওমর ফারুক বলেন, এলাকার একটি জালটাকা ব্যবসায়ী চক্র এর আগেও ওই ব্যবসায়ীর দোকোনে জালটাকা ঢুকিয়ে দিয়ে তাকে আটক করার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়।

তিনি জানান, ব্যবসায়ী সোহেল মিয়াকে আমি এবং এলাকার লোকজন ভালোভাবেই চিনেন। সে কখনো এসব কাজে জড়িত থাকতে পারে না।

এ বিষয়ে সহকারী পুলিশ সুপার (মুরাদনগর বি-সার্কেল) ইকবাল হোসেন হাজারী বলেন, চট্রগ্রাম থেকে হায়দরাবাদ বাজারে বিপুল পরিমান জালটাকার একটি চালান এসেছে- এমন খবর পেয়ে বাঙ্গরা থানার এএসআই মোসলেমসহ পুলিশ সদস্যরা অভিযানে যায়। এ সময় বাজারের সাধারণ সম্পাদক সোহেল মিয়ার দোকান থেকে দুই লাখ জাল টাকা উদ্ধার করে তাকে আটকের চেষ্টা করলে সে চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে ঘিরে ফেলে।

পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে ফাঁকা গুলি করে লোকজনকে ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ সদস্যদেরকে উদ্ধার করে বলেও জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন পুলিশের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, হায়দরাবাদ গ্রামে জালটাকা উদ্ধারের অভিযানে কিছু দুস্কৃতিকারী আমার চার পুলিশ সদস্যকে আহত করেছে। এ সময় জনতাকে ছত্রভঙ্গ করার জন্য পুলিশ ২৯ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোঁড়ে। এ ঘটনায় বাঙ্গরা বাজার থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

You must be logged in to post a comment Login